জেনে নিন চামড়ার মােজার উপর মাসেহ করার হুকুম কি? এ সমপর্কে মাসআলা।

Share:

আসসলামুয়ালাইম

পরম করুনাময়,অসীম দয়ালু মহান আল্লাহ পাকের নামে শুরু করছি।

কেমন আছেন সবাই?আশা করি আল্লাহর রহমতে সবাই ভালো আছেন। আমিও আপনাদের দোয়ায় ভালো আছি।আজ আমি আপনাদের জন্য নিয়ে হাজির হয়েছি…মােজার (চামড়ার) উপর মাসেহ করার হুকুম কি? এ সমপর্কে মাসআলা নিয়ে।

মােজার উপর মাসেহ করার হুকুমঃ-

মাসয়ালা ঃ-

পায়ে যদি (চামড়ার) মােজা থাকে আর মােজা পূর্ণ পবিত্রতার পরে পরা হয়ে থাকে, তাহলে অজু ভঙ্গ হওয়ার সময় থেকে মুকীমের (শরয়ী মুসাফির নয় এমন ব্যক্তিকে মুকীম বলে) জন্য একদিন এক রাত এবং মুসাফিরের জন্য তিন দিন তিন রাত পর্যন্ত মােজা পা থেকে না খুলে তার উপর মাসেহ করা
জায়েজ আছে।মােজা যদি এমন ফাটা হয় যে, চলার সময় তিন আঙ্গুল পরিমাণ পা বের
হয়ে পড়ে; তাহলে তার উপর মাসেহ করা জায়েজ হবে না।
অযু আছে এমন ব্যক্তি যদি পা থেকে একটি মােজা এতটুকু খুলে
ফেলে যে, তাতে পায়ের বেশীর ভাগ মোেজা থেকে বের হয়ে আসে কিংবা
যদি মােযার উপর মাসেহ করার মেয়দা শেষ হয়ে যায়, তাহলে এসব
অবস্থায় উভয় মােযা খুলে পা ধুয়ে নেবে। তবে পুনরায় অযূ করা জরুরী
নয়। কিন্তু ইমাম মালেক রহ, এর মতে পুনরায় অযু করে নিতে হবে।
মােযার উপর মাসেহ করার ক্ষত্রে ফরজ হলাে, পায়ের পিঠের
উপরিভাগে তিন আঙ্গুল পরিমাণ মাসেহ করা। আর সুন্নত হলাে, হাতের
পাঁচ আঙ্গুলের সবকটি পায়ের আঙ্গুলের মাথা থেকে শুরু করে পায়ের
গােছা পর্যন্ত টেনে আনবে। ইমাম আহমদ রহ. এর মতে এটা ফরজ।
সাবধানতার খাতিরে এটাই করে নেয়া বাঞ্ছনীয়।

আর অযু করার পর দুয়া বলবেঃ-


অর্থ :-

আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, এক আল্লাহ তায়ালা ব্যতীত কোন
ইলাহা বা মাবুদ নেই। আরো সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলায়হি
ওয়াসাল্লাম তার বান্দা ও তার রাসুল।
হে আল্লাহ! আমাকে তাওবাকারীদের অন্তর্ভূক্ত করে নাও এবং তোমার পবিত্রতা ও মহিমা ঘােষণা করছি।হে আল্লাহ! আর তােমার নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করছি ও তােমার কাছে তাওবা করছি। এরপর দু’ রাকাআত (তাহিয়্যাতুল অয়ু) নামাজ আদায় করবে।

আল্লাহ্ তালা আমাদের কে এর উপর আমল করার তৌফীক দান করুন,,,আমিন,, সবাই সুস্তো থাকেন ভালো থাকেন আবর পরে দেখা হবে নতুন কোন বিষয় আল্লাহ্ হাফেয,,,,।

The post জেনে নিন চামড়ার মােজার উপর মাসেহ করার হুকুম কি? এ সমপর্কে মাসআলা। appeared first on Tipsjano24.com.



News alo

No comments